বদলে যাওয়া চীন আর নগরের নাম বেইজিং

নিজের চোখকে বিশ্বাস করা কঠিন। যাকে বলে খোলনলচে পালটে যাওয়া। অবশ্য এর একটি প্রধান কারণ হতে পারে দু’ হাজার আটের অলিম্পিক আয়োজন। পৃথিবীর কাছে একটি ঝকঝকে শহর উপহার দেয়ার বাসনা। সে চেষ্টায় চীনারা যেন অনেকটাই সফল, অলিম্পিকে আগত বিদেশী অতিথিরা সত্যিই মুগ্ধ হয়ে দেখলো বেইজিং-এর এই নব রূপ। অলিম্পিক একটি উপলক্ষ মাত্র, এমনিতে চীনাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বিস্ময়কর, তারই প্রতিফলন রাজধানী বেইজিং-এ।

চীনারা তাদের উন্নতির যে-তরিকা, তার নামকরণ করেছে সমাজতান্ত্রিক বাজার অর্থনীতি। অর্থাৎ পুঁজিবাদি ঘুড়ি যত উপরেই উঠুক তা নিয়ন্ত্রিত হবে সমাজতান্ত্রিক লাটাইয়ে। এক দেশ দুই নীতি – সমাজতন্ত্র আর পুঁজিতন্ত্রের সহাবস্থান। তবে এই নীতিতে চীনারা বেশ সফলই, পুঁজিবাদের এই মিশেলে অন্তত রক্ষা করতে পেরেছে লাল পতাকাটি। চীনদেশে লাল পতাকা এখনও উড়ছে। পুঁজিবাদ আর সমাজতন্ত্রের এই ফিউশন এক বিস্ময়্কর অর্থনৈতিক উন্নয়নের সূচনা করেছে চীনদেশে, যার প্রশংসা নিন্দুকেরাও করে। সমাজতন্ত্র সম্পর্কে আগে মজা করে বলা হতো — সবাই একসঙ্গে গরীব হওয়া; চীন বোধ হয় সেই দুর্নাম ঘোচাতে চেয়েছে। আবার চীনের এই পদ্ধতির সমাজতন্ত্রে সবাই একসঙ্গে ধনী হতে পারবে কি না তা অবশ্য প্রশ্নসাপেক্ষ। তবে এই দেশে যে ধনী্দের সংখ্যা বেড়ে গেছে তা বড় বড় শহরগুলোর পালটে যাওয়া রূপই বলে দেয়, যেমন সাংহাই, ক্যান্টন, বেইজিং।

বেইজিং সত্যিই পালটে গেছে অনেক। শহরের প্রাণকেন্দ্র ওয়াং ফু চিং সড়কে এলেই বড় ধরনের হোঁচট খেতে হয়। এ কোথায় এলাম! সারি সারি চকচকে দালান আর বড় বড় সব ডিপার্টমেন্টাল স্টোর — কোনোভাবেই একে মোলাতে পারছি না আগের জমানার সাথে। কিছু কিছু বেসমেন্ট শপ এত বড় যে সেখানে মার্সিডিজ গাড়ি থেকে শুরু করে আলপিন পর্যন্ত পাওয়া যায় আর সর্বত্র ব্র্যান্ড জিনিসের পসরা। ব্র্যান্ড জিনিসের প্রতি চীনাদের ঝোঁক বেশি। আর বেশির ভাগই আমেরিকান ব্র্যান্ড। চীনা তরুণ তরণীদের হৃদয়ে আমেরিকান ড্রিম ভালোভাবেই গেঁথে গেছে। আমার মনে আছে পনেরো বছর আগে ভালো কিছু কেনার জন্য আমরা হংকং যেতাম, প্রথম যখন আমরা হংকং-এ পা ফেলি বিস্ময়ে অভিভূত হয়েছিলাম গগনচুম্বী দালান আর ঝাঁ-চকচকে বিলাসী বিপণি বিতানগুলো দেখে। আজ বেইজিং আর হংকং যেন এক কাতারে উঠে এসেছে। বেইজিংও ক্রমশ বিলাসী হয়ে উঠেছে।

বেইজিং এখন প্রাচ্যের একটি আধুনিক নগরী, এর সর্বত্র আধুনিকতার ছোঁয়া। বাস, পাতাল রেল সর্বত্র ইউরোপীয় মান অর্জনের প্রচেষ্টা। কোথাও কোথাও পাশ্চাত্য নগরী বলে ভুল হয়। আগের জমানার সাথে তুলনা করলে দেখা যায়, চীনাদের জীবন যাপন ও অভ্যাসেরও অনেক পরিবর্তন হয়েছে। পাশ্চাত্যের অনেক খাবারদাবারেই তারা অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে। মনে আছে আগে বেইজিং-এ একটি মাত্র ম্যাকডোনাল্ড বার্গারের দোকান ছিল; এখন তো অলিগলিতে সর্বত্র ম্যাকডোনাল্ড, কেন্টাকি ফ্রাইড চিকেন আর পিজা হাটের ছড়াছড়ি। চীনারা এই সব খাবার আগে ভালো চোখে দেখতো না। আর এখন আমেরিকান এই ফাস্ট ফুডের দোকানগুলোতে ভিড় লেগেই থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *